সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

শ্বাসকষ্টে সাবধানতা

শ্বাসকষ্ট, এলার্জি বা এজমা কোন কঠিন রোগ নয়। কিন্তু প্রতিনিয়ত আমাদের পরিবেশ দূষণের ফলে এই রোগের প্রকোপ বাড়ছে। কাজের তাগিদে যাদের প্রতিদিন বাইরে বেরুতে হ্য়, ধুলাবালির সংস্পর্শে আসতে হয়, তারা খুব সহজেই এই সমস্যায় আক্রান্ত হন। তবে একটু মনোযোগী হলেই এটি নিয়ন্ত্রণে এনে সুস্থ থাকা সম্ভব। এর জন্য যে বিষয়গূলো মাথায় রাখতে হবে: - ধূমপান করবেন না - বাসায় পোষা প্রাণী রাখবেন না - মশার কয়েল বা এরোসল ব্যবহারের জন্য দূরে থাকুন - ধুলাবালি থেকে দূরে থাকতে হবে - উগ্র সুগন্ধি ব্যবহার করা যাবে না - গরমে খুব বেশি ঘাম যেনো না হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন, দরকার হলে বারবার ঘাম মুছে ফেলুন - শীতের শুরুতে শীতবস্ত্র ধুয়ে, লেপ ভালো করে রোদে শুকিয়ে ব্যবহার করতে হবে - ঘাসের উপর দিয়ে হাটা পরিহার করতে হবে - ঠান্ডা পানি/ খাবার পরিহার করতে হবে নিম্নলিখিত খাবারগুলোতে এলার্জি হতে পারে: - মাছ: ইলিশ, চিংড়ি - মাংস: গরুর মাংস - দুধ - হাসের ডিমের সাদা অংশ - সব্জি: মিষ্টি কুমড়া, কচু, বেগুন - ফল: আপেল, কলা এছাড়া শ্বাসকষ্টের রোগিদের সবসময় হাসিখুশি থাকা দরকার, কখনও হতাশাগ্রস্ত হওয়া যাবে না ।সবসময় ভয় ও চিন্তামূক্ত থাকতে হবে।
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

careful, health, allergy, asthma