সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Egg-for-Beauty.jpg

সৌন্দর্য চর্চায় ডিমের ব্যতিক্রম ধর্মী কিছু ব্যবহার

খাওয়া ছাড়াও এই ডিম আমাদের দেখতে আকর্ষণীয় করার বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। তাই যখনি নিস্তেজ চুল বা ফ্যাকাশে ত্বকের সৌন্দর্য দ্রুত বৃদ্ধি করা দরকার হয়ে পরে তখনি ফ্রিজে খুলে ডিম বের করে নিন।

সচেতন মানুষরা অনেকেই জানেন যে ডিম প্রোটিন এবং ক্যালসিয়ামে ভরপুর। এছাড়া এতে রয়েছে পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং ভিটামিন এ, বি৬, বি১২ এবং ডি।

খাওয়া ছাড়াও এই ডিম আমাদের দেখতে আকর্ষণীয় করার বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। তাই যখনি নিস্তেজ চুল বা ফ্যাকাশে ত্বকের সৌন্দর্য দ্রুত বৃদ্ধি করা দরকার হয়ে পরে তখনি ফ্রিজে খুলে ডিম বের করে নিন।

এখানে ডিমের সৌন্দর্য চর্চায় ডিমের কিছু ব্যতিক্রম ধর্মী ব্যবহার তুলে ধরছি যেগুলো নিঃসন্দেহে কোন ধরনের দামি প্রসাধনীর কেনার খরচ বাঁচিয়ে আপনার সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে সক্ষম।

তারুণ্য ফিরিয়ে আনতে সক্ষম: দোকানে প্রাপ্ত অ্যান্টিঅ্যাজিং ক্রিমের ঊর্ধ্বমূল্য আমাদের বেশির ভাগ মানুষদের মাথা ঘুরিয়ে দেয়ার জন্য যথেষ্ট। তাই ওইসব রাসায়নিক পদার্থযুক্ত ক্রিমগুলো কিনে পকেট খালি না করে যদি নিজের সৌন্দর্য বাড়াতে চান তাহলে এর জন্য ডিমই যথেষ্ট।

  • একটি দিমের সাদা অংশ, এক বা দুই টেবিল চামচ মধু, ৩ টেবিল চামচ মুলতানি মাটি একসাথে নিয়ে খুব ভালো করে মিশিয়ে মুখে, গলায় ও ঘাড়ে লাগান। এই মাস্কটি সম্পূর্ণ ভাবে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত মুখে রেখে তারপর ধুয়ে ফেলুন। এটি সপ্তাহে ২ দিন মাখুন এবং কিছুদিন পরেই লক্ষনীয় পরিবর্তন চোখে পরবে।

ত্বকের মরা কোষ দূর করতে: জেনে অনেকেই অবাক হবেন যে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য ডিমের খোসা পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারেন। ত্বকের অপেক্ষাকৃত কালো অংশ গুলো বিশেষ করে ঘাড়, কনুই এবং হাঁটুর মরা কোষ দূর করার কাজে ডিমের খোসা চমৎকার বডি স্ক্রাব হিসেবে কাজ করে। তবে ডিমের এই খোসা ব্যবহার করার আগেই অবশ্যই খোসাটি ভালো ভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে।

  • ৪/৫ টি ডিমের খালি খোসা নিয়ে ব্লেন্ডারে মিহি করে গুড়া করে নিন। আবার একটি বোলে সেই গুঁড়া নিয়ে তাতে কয়েক টেবিল চামচ মধু ও বিটলবন দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তাপর সেই ঘন পেস্টটা সারা শরীরের মেখে কিছুক্ষন রেখে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত ব্যবহারের ফলে আপনি পাবেন ত্বকের বাড়তি উজ্জলতা।

নখ শক্ত করতে: অনেকেরই খুব সহজেই নখ ভেঙ্গে যায়। তাই ডিম ব্যবহার করে খুব সহজেই প্রাকৃতিক ভাবে নখকে করতে পারেন বেশ শক্ত।

  • একটি বাটিতে একটি ডিমের কুসুম এবং ১/৪ কাপ কুসুম গরম দুধ নিন। তারপর সেই মিশ্রনে ১০ মিনিট নখ ভিজিয়ে রাখুন। এভাবে প্রতিদিন করুন এবং কিছুদিন পরই আবিষ্কার করুন আপনার শক্ত মজবুত নখ।

চুলের ডিপ কন্ডিশনিং এর জন্য: ডিমের তৈরি বাজারে প্রাপ্ত অসংখ্য কন্ডিশনার বেশ চমৎকার কাজ করে। অনেক সময় ওইসব কন্ডিশনার কিনে নিয়মিত ভাবে ব্যবহার করা অনেকেরই সম্ভব হয় না। তাই আপনি বাসায় খুব সহজেই ডিম এবং এর সাথে সামান্য কিছু উপাদান মিশিয়ে কন্ডিশনার তৈরি করে খুব সহজেই চুলকে করে তুলতে পারেন নরম এবং উজ্জ্বল।

  • চুলের ডিপ কন্ডিশনিং এর জন্য চুলের লম্বা অনুযায়ী কয়েকটি ডিম (ছোট হলে কম আর লম্বা হলে বেশি), ৪ টেবিল চামচ টক দই এবং আধা কাপ আমলকী গুঁড়া মিশিয়ে নিন। আবার সেই মিশ্রন চুলের গোড়ায় ম্যাসেজ করে লাগিয়ে সেই সাথে সব চুলে লাগিয়ে একটি শাওয়ার ক্যাপ লাগিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।

চুলের ঘনত্ব বাড়াতে: নিস্তেজ ও নিষ্প্রাণ চুল কারোই কাম্য নয়। অনেকেই চান প্রাকৃতিক ভাবেই চুলকে চকচকে ও সতেজ করতে। খুব দ্রুত চুলের ঘনত্ব ও দীপ্তি বাড়াতে চুলকে ডিম ও লেবুর সাহায্যে কন্ডিশনিং করুন।

  • একটি বাটিতে একটি ডিম নিয়ে তাতে মধ্যম আকৃতির একটি লেবুর রস মিশিয়ে কাটা চামচ দিয়ে ফোমের মত না হওয়া পর্যন্ত বিট করুন। সেই মিশ্রণটি এবার মাথার তালু এবং চুলে মাখুন। তবে খেয়াল রাখবেন অবশ্যই যেন সব চুলে এই মিশ্রনটি লাগে। তারপর একটি শাওয়ার ক্যাপ লাগিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে ধুয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

ত্বকের ফোলাভাব দূর করতে: অনেক সময়ই দেখা যায় রাতের বেলা ভালো ঘুম না হলে সকালে চোখের নিচে কালো হয়ে থাকে এবং ফুলে থাকে। যার ফলে দেখতে ক্লান্ত এবং বয়স্ক দেখায়। তাই এসব সমস্যা দ্রুত দূর করতে ব্যবহার করুন ডিম।

  • একটি ডিমের সাদা অংস ভেঙ্গে বিট করে নিন তারপর কোন ছোট ব্রাশ বা আঙ্গুলের মাধ্যমে চোখের নিচের ফোলা স্থানে লাগান এবং শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর ধুয়ে ফেলুন ঠাণ্ডা পানি দিয়ে।

ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে: যাদের তৈলাক্ত মুখ তাদের মুখের তৈলাক্ততার জন্য অনেক সমস্যায় পরতে হয়। বিশেষ করে টি জোনে অতিরিক্ত তৈলাক্ততা দূর করতে ডিম চমৎকার কাজ করে।

  • আধা কাপ অটমিল এবং একটি সাদা অংশ খুব ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে সেই মিশ্রণ আঙ্গুলের মাথা দিয়ে আস্তে আস্তে ম্যাসেজ করুন। এভাবে ৩০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করার সাথে সাথে লোমকূপ গুলোর আকৃতির ছোট করে।

 -
লেখক: জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ; এক্স ডায়েটিশিয়ান,পারসোনা হেল্‌থ; খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (স্নাতকোত্তর) (এমপিএইচ); মেলাক্কা সিটি, মালয়েশিয়া।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

ডিম, সৌন্দর্য, ত্বক, তৈলাক্ত, তারুণ্য, চুল, নখ, কন্ডিশনিং, কালো-দাগ, চোখ, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ-এবং-ভিটামিন-এ, বি৬, বি১২-এবং-ডি।