সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Absolute-Hit-Morning-Banana-Diet.jpg

সহজ কৌশল কলা দীর্ঘদিন তাজা রাখার উপায়

যদি পাকা কলা কিনে আনার পর সাথে সাথেই খেয়ে ফেলতে না চান, তাহলে একটা কাগজের ব্যাগে ঢুকিয়ে ব্যাগের মুখ আটকিয়ে তা ফ্রিজে রেখে দিন। কলার খোসায় হয়ত দাগ পড়তে পারে কিন্তু ভেতরের অংশে কিছু হবে না।

কলা একটি অন্যকম সহজলভ্য তৃপ্তিকর ফল যা দেহকে সুস্হ ও চাঙ্গা রাখে। খুব সহজ কিছু কৌশলের মাধ্যমে আপনি কলায় বাদামী দাগ পড়া রুখতে পারেন এবং তাজা রাখতে পারেন দীর্ঘদিন। আসুন, তাহলে ঝটপট জেনে নেয়া যাক কৌশলগুলো।
  • পুরোপুরি পাকা, হলুদ কলার পরিবর্তে কাঁচাপাকা সবুজাভ কলা কিনুন এবং ঘরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে দিন। কাঁচা বা অর্ধকাঁচা কলা ফ্রিজে রাখা ছাড়াই অনেকদিন পর্যন্ত ভালো থাকে। 
  • কলা কিনে আনার পর যত দ্রুত সম্ভব প্লাস্টিক ব্যাগ থেকে বের করে নিন। ব্যাগের মধ্যে বদ্ধ অবস্হায় থাকলে কলা দ্রুত পেকে নরম হয়ে যায় কিন্তু ঘরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রাখলে ধীরে ধীরে পাকে। তবে খেয়াল রাখতে হবে কলা যেন উষ্ণ স্হানে বা সরাসরি সূর্যালোকে না রাখা হয়। বরং রাখতে হবে ঠাণ্ডা ও অন্ধকার স্হানে এবং চুলা, হিটার ও জানালা থেকে দূরে।
  • বাঁশের ঝুড়িতে কলা চিৎ করে রাখুন। এতে করে কলা সহজে থেঁতলে যাবে না। অনেক ফলের ঝুড়িতে কলা ঝুলিয়ে রাখার জন্য হুকের ব্যবস্হা থাকে। হুকে ঝুলিয়ে রাখলেও কলা ভালো থাকে।
  • যদি পাকা কলা কিনে আনার পর সাথে সাথেই খেয়ে ফেলতে না চান, তাহলে একটা কাগজের ব্যাগে ঢুকিয়ে ব্যাগের মুখ আটকিয়ে তা ফ্রিজে রেখে দিন। কলার খোসায় হয়ত দাগ পড়তে পারে কিন্তু ভেতরের অংশে কিছু হবে না। এই পদ্ধতিতে ফ্রিজে ৭-১০ দিন পর্যন্ত কলা ভালো রাখতে পারবেন।
  • কলা দ্রুত পেকে যাওয়া ঠেকাতে তা অন্যান্য পাকা ফল থেকে আলাদা করে রাখুন। পাকা ফল থেকে ইথিলিন উৎপন্ন হয় যা অন্যান্য কাঁচা ফলের সংস্পর্শে আসলে সেগুলোকেও পাকিয়ে দেয়। 
  • কলা তাজা রাখার আরেকটি উপায় হচ্ছে কলার ডাঁটকে প্লাস্টিকে মুড়িয়ে রাখা। এটা কলার ডাঁট থেকে আর্দ্রতা বেরিয়ে যাওয়া এবং অন্যান্য পাকা ফল থেকে নির্গত ইথিলিনকে গ্রহণ করা থেকে প্রতিরোধ করে। প্লাস্টিক ছাড়াও ফয়েল পেপার অথবা টেপ দিয়ে ডাঁট মুড়িয়ে রাখতে পারেন। এর ফলে যতবার গোছা থেকে কলা ছিঁড়বেন, ছেঁড়া শেষে ততবার কলার ডাঁট সাবধানে মুড়িয়ে নিতে হবে। তাতে কলা অনেকদিন তাজা থাকবে। 
  • যদি উপরের পদ্ধতিটি অনুসরণ করতে অসুবিধা বোধ করেন, তাহলে আরেকটি সহজ উপায় হচ্ছে, কলার গোছা থেকে কলাগুলোকে পৃথক করে নিয়ে প্রতিটি কলার ডাঁটকে মুড়িয়ে নেয়া। এর ফলে কলার খোসায় সহজে দাগও পড়বে না।
  • কলা কেটে রাখার পরও বাদামী হয়ে যাওয়া রোধ করতে পারেন। কেটে রাখা কলার টুকরোর ওপর আনারস, কমলা, আঙুর, ভিনেগার অথবা লেবুর রস বা জুস ছিটিয়ে দিন। কিংবা শুধু লেবুর রসে কলার টুকরোগুলোকে ২-৩ মিনিট ডুবিয়ে রাখুন। টুকরোগুলো বাদামী রঙ হবে না।
আর যদি কলা সংরক্ষণ করতে দেরী হয়ে যায়, কিংবা কলা যদি বেশী পেকে যায়, তবে সেগুলো দিয়ে বিভিন্ন ধরণের মুখরোচক খাবার বানিয়ে নিতে পারেন যেমন ব্যানানা পাই, ডোনাট, চিজকেক, প্যানকেক, পুডিং ইত্যাদি।

সূত্র: ইন্টারনেট

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

কলা, তাজা-রাখার-উপায়, ঝুড়ি, পেপার, ফ্রিজে-রাখা